অপরাধিকে বাঁচাতে, মানবাধিকার কর্মিদের অপমান করলেন ইলামবাজার থানার বড়বাবু । sHARE করুন আপনার বন্ধু ও পরিচিতিদের সাথে ।

আমাদের পেজ সেয়ার ও থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ ।

নিজস্য রিপোর্টার : বালি ভর্তি ট্রাকটার, গাড়িতে নেই নাম্বার প্লেট । দ্রুত গতিতে চালিয়ে আসছিলেন রাস্তার উপর দিয়ে । ইন্ডিয়ান হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ক্রাইম কন্ট্রোলের মেম্বার অশেষ ঘোষ দূর থেকে লক্ষ করেন গাড়িটির গতিবেগ তাই তিনি পিচ রাস্তা থেকে নেমে যায় কাঁচা রাস্তাতে, তবুও মেলেনি রেহায় । ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূম জেলার, ইলামবাজার থানার অর্ন্তরভুক্ত (নাচোন সাহা, জল ট্যাংক এর কাছে । )
অশেষ ঘোষ আহত হন আর গুঁড়িয়ে দেওয়ার মতো অবস্থা হয় ওনার বাইকের । ইন্ডিয়ান হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ক্রাইম কন্ট্রোলের বীরভূম জেলার সভাপতি (নিশিথ গঁড়াই) ও সেক্রেটারি (শ্যামল পাল ) ওখানে পৌঁছানোর আগেই, কর্মরত সেবিক ভলান্টিয়ার কে সাথে নিয়ে আসে সেই গাড়ির মালিক (রাজ) ও গাড়ির ইঞ্জিন টাকে নিয়ে যায় নিজের বাড়ি তে । কোন রকম বাঁধা দেয়নি সেবিক ভলান্টিয়ার বরঞ্চ গাড়ির মালিককে গাড়ির ইঞ্জিন নিয়ে যেতে সাহায্য করেন ।
এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ইলামবাজার থানায় ডাইরি করতে জান । IC অফিসে না থাকায় অফিস থেকে যায় কল । হিউম্যান রাইটসের নাম শুনে নিজেকে করে নেয় ব্যাস্ত আর দীর্ঘ সময়ের পরে পৌঁছায় থানায় । ওনার সাথে দেখা করার জন্য নেওয়া হয় পারমিশন । পারমিশন পেয়ে কথা বলতে যান সেক্রেটারি (শ্যামল পাল ) সাথে সভাপতি ও আরো কয়েক জন ইন্ডিয়ান হিউম্যান রাইটসের কর্মী । সেক্রেটারি কথা বলা শুরু কতেই উচ্চ শ্বরে অকথ্য ভাষাতে অপমান করতে থাকেন IC অফিসার । রুমের বাইরে থাকা সেবিক ভলান্টিয়ার ও অফিসাররা ন্যায় মজা । IC অফিসার বলেন হিউম্যান রাইটস তিনি মানেন না, এমনকি গোটা ইন্ডিয়ান হিউম্যান রাইটসের উদ্দেশ্য করে বলেন- কি করবে হিউম্যান রাইটস ? কি আছে এদের পাওয়ার ? আরো ভীষণ ভাবে অপমান করে বের করে দেওয়া হয় হিউম্যান রাইটস কর্মীদের ।
বীরভূমের সেক্রেটারি-শ্যামল পালের দাবি, একজন কর্মরত IC অফিসার কি করে উচ্চ শ্বরে অপমান করতে পারেন হিউম্যান রাইটস কর্মীকে । একজন হিউম্যান রাইটস কর্মীকে যদি এই ভাবে অপমানিত করেন তা হলে একজন সাধারন ব্যাক্তির সাথে কেমন টা ব্যাবহার করেন । শ্যামল পাল ভীষণ ভাবে অপমানিত হয়ে জানিয়েছে সমস্ত হিউম্যান রাইটস সংগঠনকে এক সাথে করে এনার মতো অফিসারদের বিরুদ্ধে স্টেপ নেবেন । শুধু এখানেয় থেমে থাকবেন না । এই বার্তা পৌঁছে দেবেন দিল্লী ন্যাশনাল হিউম্যান রাইটসের কাছে, পৌঁছাবে ডেপুটেশন ভারপ্রাপ্ত জেলা শাসক ও মুখ্যমন্ত্রীর কাছে । এটাও বলেছেন বিনা নাম্বারে চলছে গাড়ি তার কোন স্টেপ কেন নিচ্ছেনা পুলিশ সেটাও তুলে ধরবেন ।
ইলামবাজার থানার IC অফিসের বিরুদ্ধে যতোক্ষন না কোন স্টেপ নিচ্ছেন ততোক্ষন অবধি থেমে থাকবেন না ইন্ডিয়ান হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ক্রাইম কন্ট্রোলের সেন্ট্রাল কমিটি ।

706total visits.